Namecheap.com
Published On: Sun, Jan 21st, 2018

এশিয়ার নীরব ঘাতক ‘সুপারি’এর ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে জানুন এবং সবাইকে সতর্ক করুন

সুপারি এর ক্ষতিকর দিক – বিশ্বের মোট জনগোষ্ঠীর প্রায় এক-দশমাংশ এই সুপারি খান। কোথাও এটিকে দেখা হয় ভালোবাসার প্রতীক এবং বদহজম ও বন্ধ্যাত্বের মতো সমস্যার প্রতিকার হিসেবে।

আপনি জানেন কি এই সুপারিই প্রতিবছর হাজার-হাজার মানুষের মৃত্যুরও কারণ? এর কার্যক্ষমতা এতটাই বেশি যে নিকোটিন, অ্যালকোহল এবং ক্যাফেইনের পাশাপাশি একেও মতিবিভ্রমকারী মাদক হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

যদিও নারী এবং শিশুসহ অনেকেই এটি ব্যবহার করেন, তবে কর্মক্ষম পুরুষদের মাঝেই সুপারির ব্যবহার বেশি।

গাড়ি চালানো, মাছ ধরা কিংবা নির্মাণকাজের মতো কর্মকাণ্ডে দীর্ঘসময় জেগে থাকার জন্য এটি তারা সুপারি চিবান।

তবে এই সুপারিতে অভ্যস্তদের উচ্চমাত্রায় মুখের ক্যানসারের আক্রান্তের ঝুঁকি থাকে। এমনকি প্রথমবার সুপারি ব্যবহার করার কয়েক দশক পরেও কারো মুখে ক্যানসার হতে পারে।

এশিয়ার যে কয়টি এলাকায় সুপারি খুব বেশি জনপ্রিয় তার একটি তাইওয়ান। সেখানে সুপারিকে বলা হয় ‘তাইওয়ানের চুইংগাম’।

দেশটির সরকার এখন কয়েক শতকের পুরনো এই অভ্যাসটি কমিয়ে আনা এবং প্রতিবছর হাজার-হাজার জীবন ঝরে পড়া থেকে রক্ষার জন্য জন্য নানা পদক্ষেপ নিয়েছে।

তাইওয়ানের ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি হাসপাতালের মুখের ক্যানসার বিশেষজ্ঞ হান লিয়াং-জুন বলেন, ‘অর্ধেক মানুষ এখনো জানেই না যে সুপারি মুখের ক্যানসারের অন্যতম কারণ।’

এশিয়ার অনেক অঞ্চলে সুপারি স্থানীয় সংস্কৃতির একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এটি কাঁচা, শুকনা কিংবা পানপাতা দিয়ে মুড়িয়ে খিলি বানিয়ে খাওয়া হয়।।

যদিও পানের খিলি বিভিন্ন দেশে বিভিন্নভাবে বানানো হয়। তবে সাধারণতঃ চুন, পানপাতা, এলাচি বা দারচিনির মতো মশলা এবং তামাকের সাথে মিশিয়ে এই খিলি তৈরি করা হয়।

আন্তর্জাতিক ক্যানসার গবেষণা সংস্থা এসব উপাদানের মধ্যে এলাচ এবং দারচিনি ছাড়া বাকি সব উপাদানকে ক্যানসার সৃষ্টিকারী উপাদান হিসেবে তালিকাভুক্ত করেছে।

চুনকে বিশেষ একটি সমস্যা হিসেবে দেখা হয়, কারণ এটি ব্যবহারের ফলে মুখের ভেতর ছোট-ছোট অনেক ক্ষত তৈরি হতে পারে।

ক্যানসার সৃষ্টিকারী অনেক উপাদান এসব ক্ষতের মাধ্যমে চামড়ার ভেতরে প্রবেশ করতে পারে।

Read also:

মাইগ্রেনের ব্যথা? রেহাই দেবে যেসব খাবার..

মাথা থাকলে ব্যথা হবেই। আর যদি হয় মাইগ্রেনের ব্যথা তবে তো কথাই নেই! ভুক্তভোগী মাত্রেই জানে এই মাইগ্রেনের ব্যথার তীব্রতা আর কষ্ট কতটা। অসহনীয় এই ব্যথা থেকে রেহাই পেতে আত্মহত্যার মতো ঘটনাও ঘটে থাকে।

মাইগ্রেনের ব্যথা বিরতি দিয়ে হয়। কিছু দিন হয় আবার কিছু দিন হয় না। বমি-বমি ভাব হয়, কখনো-কখনো ব্যথা হয় খুবই তীব্র। এই ব্যথায় আলো ও শব্দে স্পর্শকাতরতা তৈরি হতে পারে। তবে ভয় নেই। ডাক্তারী পরামর্শের পাশাপাশি কিছু প্রক্রিয়া মেনে, মাইগ্রেন ব্যথা থেকে পুরোপুরি আরোগ্য না হলেও অনেকটাই রেহাই পেতে পারেন।

কিছু খাবার রয়েছে যেগুলো মাইগ্রেনের ব্যথা কমাতে সাহায্য করে। পাঠকের সুবিধার্থে নিচে এ বিষয়টা তুলে ধরা হলো।

কাঠবাদাম:
কাঠবাদাম দামে সস্তা হলেও এটি কিন্তু দারুন স্বাস্থ্য-হিতকর। কাঠবাদামের মধ্যে রয়েছে চর্বি, ম্যাগনেসিয়াম, ট্রিপটোফেন, অ্যামাইনো এসিড। একমুঠো কাঠবাদাম রক্তনালী ও পেশিকে শিথিল করে এবং মাইগ্রেনের ব্যথা কমাতে কাজ করে।

 

কলা:
অনন্য ফল কলা। কলার মধ্যে পটাসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম ভরপুর রয়েছে। এই উপাদানগুলো মাইগ্রেনের ব্যথা কমাতে কাজে দেয়। কলা রক্তনালীকে শিথিল করে। ভালো ফলাফলের জন্য প্রতিদিন কলা খান।

ঝাল খাবার:
ঝাল খাবার বিশেষত মরিচের চা আপনাকে মাইগ্রেনের ব্যথায় অনেকটাই আরাম দেবে, ব্যথার তীব্রতা কমাবে।

পুদিনাপাতার চা:
প্রতিদিন পুদিনা পাতা মিশ্রিত চা খেলে মাইগ্রেনের ব্যথায় আক্রান্তের সম্ভাবনা কমবে অনেকটাই।

গোলমরিচ:
খাবার নিয়মিত গোলমরিচ মেশালে রসনায় তৃপ্তি তো আনবে, মাইগ্রেনের ব্যথায় অনেকটাই রেহাই পাবেন আপনি।

সর্বাধিক পঠিত

Leave a comment

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>