খালেদাকে মুক্ত করতে যে সিদ্ধান্ত নিল ২০ দলীয় জোট

0
274

দুর্নীতি মামলার দায়ে কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ২০ দলীয় জোট নিজ নিজ দলের অবস্থান থেকে যুগপৎ আন্দোলনে যাবে বলে জানিয়েছেন, জোটের সমন্বয়ক নজরুল ইসলাম খান। তিনি বলেন, দলীয় জোটের মধ্যে কোনো বিভেদ নেই।

সোমবার (৮ এপ্রিল) রাত ১০টার দিকে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে ২০ দলীয় জোটের বৈঠক শেষে নজরুল ইসলাম খান এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, সুচিকিৎসার স্বার্থে অবিলম্বে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি জানিয়েছেন ২০ দলীয় জোট। জোটনেত্রীর মুক্তির দাবিতে ২০দলীয় জোটভুক্ত দলগুলো নিজ নিজ দলের হয়ে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করবে। তবে যা কিছুই হোক না কেন ২০ দলের ব্যানারেও কর্মসূচি পালন করবে।

এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপির এই স্থায়ী কমিটির সদস্য বলেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলে কোনো বিভেদ নেই। খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিত ও গণতন্ত্র রক্ষায় জাতীয় ২০ দল ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এদিকে তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে যুক্তরাজ্য সরকারকে বাংলাদেশ সরকারের চিঠি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তারেক রহমানকে মিথ্যা মামলায় সাজা দেয়া হয়েছে তা যুক্তরাজ্য সরকারের অজানা নেই। অতীতেও এ ধরনের চিঠি দেয়া হয়েছে। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি।

জোটের ওই বৈঠকে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে অংশ নেন ২০ দলের সমন্বয়ক ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, জামায়াতে ইসলামীর কর্মপরিষদ সদস্য মাওলানা আব্দুল হালিম, জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) মোস্তফা জামাল হায়দার, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইররাহিম, এলডিপির মহাসচিব রেদোয়ান আহমেদ, জাগপা সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লুৎফর রহমান, খেলাফত মসলিসের আহম্মদ আবদুল কাদের পিপলস লীগের চেয়ারম্যান গরীবে নেওয়াজ, লেবার পার্টির মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, ন্যাপ ভাসানীর আজহারুল ইসলাম, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মুফতি মহিউদ্দিন, ডেমোক্রেটিক লীগের সাইফুদ্দিন মুনি, বাংলাদেশ মুলীম লীগ শেখ জুলফিকার চৌধুরী বুলবুল, সাম্যবাদী দলের সাঈদ আহমেদ, জাতীয় দলের এহসানুল হুদাস প্রমুখ।

LEAVE A REPLY