পাকিস্তানের গরিব সুন্দরী মেয়েদের কিনে নিচ্ছে চীন

মুকাদাস আশরাফ মাত্র ১৬ বছরের ছিল যখন তাঁর বাবা-মা তাঁকে বিয়ে দিয়ে দেন এক চিনা যুবকের সঙ্গে। ওই চিনা যুবক পাকিস্তানে এসেছিল বিয়ে করার জন্যই। সন্তানসম্ভবা হয়ে পাঁচ মাসের মধ্যেই আশরাফ ফিরে আসে পাকিস্তানে। কারণ তাঁকে মারধর করত স্বামী। পাকিস্তানে আশরাফই প্রথম নয়। দেশের অসংখ্য দরিদ্র খ্রিস্টান মেয়েদের মধ্যে অন্যতম তিনি।

সমাজকর্মীরা জানাচ্ছেন, সম্প্রতি গোটা পাকিস্তান জুড়ে চিন থেকে স্ত্রী খোঁজার নাম করে এসে এমনই মেয়ে পাচার চলছে গত এক বছর ধরে। এর মাঝে ঢুকে পড়েছে কয়েকজন দালালও। তারা পাকিস্তানে চিনাদের জন্য মহিলা খোঁজে। এমনকী গীর্জার বাইরে দাঁড়িয়ে উপযুক্ত পাত্রীর জন্য জিজ্ঞাসাবাদও করে তারা। পাত্রীর পরিবারের সঙ্গে টাকার বিনিময়েও এই আদানপ্রদান চালানো হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে।

পরিবারকে বোঝানো হয়, তাঁদের জামাই অত্যন্ত ধনী পরিবারের ছেলে। সে কারণেই মেয়েকে নিয়ে যাওয়ার বিনিময়ে শ্বশুরবাড়িতে কয়েক হাজার ডলার দিয়ে যান জামাই। তবে এর পরই চিনে নিয়ে গিয়ে সেই নতুন বউদের উপর শুরু হয় অত্যাচার। বাড়ির সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়ে এক গ্লাস জল পর্যন্ত খেতে দেওয়া হয় না তাঁদের।

চিনে গিয়ে আশরাফ দেখতে পেয়েছিল একটি ছোট্ট ঘরের মধ্যে থাকে তাঁর স্বামী। বড়দিনে গীর্জায় নিয়ে যাওয়ার কথা বলায় বেধড়ক মারধর করা হয় তাঁকে। এমনকী তাঁর ফোনও ভেঙে দেওয়া হয়। কেন সে গর্ভবতী হচ্ছে না তা নিয়েই ছিল স্বামীর সবচেয়ে বেশি রাগ। পরে পুলিশের ভয় দেখিয়ে কোনও মতে পাকিস্তানে ফিরতে পেরেছেন আশরাফ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*