শিখে নিন, ডেন্টিস্ট ছাড়াই বাড়িতে বসে দূর করবেন দাঁতের পাথর

দাঁতের পাথর – ডেন্টিস্ট ছাড়াই বাড়িতে বসে দূর করুন দাঁতের পাথর! দাঁতে ব্যথা! পাথর জমে হলুদ আবরণ পরে গেছে দাঁতে। অনেকেই ভুগে থাকেন এই সমস্যাটিতে।

দেখা যায়, তাদরে দাঁতে কম বেশি হলুদ বা বাদামি খনিজ পদার্থের আবরণ। ডাক্তারি ভাষায় যাকে টার্টার বলা হয়। তবে সাধারণ মানুষ একে দাঁতের পাথর হিসেবে জেনে থাকেন।

মূলত নিয়মিত দাঁত পরিষ্কার না করলেই এই টার্টার বাড়তে থাকে। যা দাঁতের ‘পিরিওডোনটাইটিস’ নামক রোগেরও কারণ।

পিরিওডোনটাইটিস কী: ‘পিরিওডোনটাইটিস’ হলে দাঁতের মাড়ির টিস্যুতে প্রদাহ হয়। ফলে মাড়ি সংকোচিত হয়ে অকালে দাঁত পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

এ সমস্যা এড়াতে প্রয়োজন নিয়মিত দাঁতে জমা টার্টার পরিষ্কার করা। টার্টার দূর করার প্রথম সমাধান হলো ডেন্টিস্ট। তবে আপনি চাইলে বাড়িতে বসেও এ সমস্যার সমাধান করতে পারেন।

টার্টার পরিষ্কার করতে যা লাগবে: বেকিং সোডা,ডেন্টাল পিক, লবণ, হাইড্রোজেন পেরোক্সাইড, পানি

টার্টার দূর করতে সবচেয়ে সহজলভ্য ও কার্যকরী উপাদান হচ্ছে বেকিং সোডা। আসুন এবার জেনে নিই টার্টার দূর করার পদ্ধতি।

 

কাপে এক টেবিল চামচ বেকিং সোডার সঙ্গে ১/২ চা চামচ লবণ মেশান। এবার গরম পানিতে টুথব্রাশ ভিজিয়ে বেকিং সোডা ও লবণের মিশ্রণ দিয়ে পাঁচ মিনিট ধরে দাঁত ব্রাশ করুন। সবশেষে কুলকুচি করে নিন।

দ্বিতীয় ধাপ

এক কাপ হাইড্রোজেন পেরোক্সাইডের সঙ্গে ১/২ কাপ হালকা গরম পানি মেশান। এই পানি মুখে নিয়ে এক মিনিট রাখুন। এরপর ১/২ কাপ পানি দিয়ে কুলকুচি করে ফেলুন।

তৃতীয় ধাপ

ডেন্টাল পিক দিয়ে দাঁতের হলুদ টার্টার ধীরে ধীরে ঘষে তুলুন। মাড়ির ক্ষতি এড়াতে ডেন্টাল পিক ব্যবহারের সময় সাবধানতা অবলম্বন করুন।

চতুর্থ ধাপ

অ্যান্টিসেপটিক মাউথ ওয়াশ দিয়ে কুলকুচি করুন

Read also:

মাইগ্রেনের ব্যথা? রেহাই দেবে যেসব খাবার..

মাথা থাকলে ব্যথা হবেই। আর যদি হয় মাইগ্রেনের ব্যথা তবে তো কথাই নেই! ভুক্তভোগী মাত্রেই জানে এই মাইগ্রেনের ব্যথার তীব্রতা আর কষ্ট কতটা। অসহনীয় এই ব্যথা থেকে রেহাই পেতে আত্মহত্যার মতো ঘটনাও ঘটে থাকে।

মাইগ্রেনের ব্যথা বিরতি দিয়ে হয়। কিছু দিন হয় আবার কিছু দিন হয় না। বমি-বমি ভাব হয়, কখনো-কখনো ব্যথা হয় খুবই তীব্র। এই ব্যথায় আলো ও শব্দে স্পর্শকাতরতা তৈরি হতে পারে। তবে ভয় নেই। ডাক্তারী পরামর্শের পাশাপাশি কিছু প্রক্রিয়া মেনে, মাইগ্রেন ব্যথা থেকে পুরোপুরি আরোগ্য না হলেও অনেকটাই রেহাই পেতে পারেন।

কিছু খাবার রয়েছে যেগুলো মাইগ্রেনের ব্যথা কমাতে সাহায্য করে। পাঠকের সুবিধার্থে নিচে এ বিষয়টা তুলে ধরা হলো।

কাঠবাদাম:
কাঠবাদাম দামে সস্তা হলেও এটি কিন্তু দারুন স্বাস্থ্য-হিতকর। কাঠবাদামের মধ্যে রয়েছে চর্বি, ম্যাগনেসিয়াম, ট্রিপটোফেন, অ্যামাইনো এসিড। একমুঠো কাঠবাদাম রক্তনালী ও পেশিকে শিথিল করে এবং মাইগ্রেনের ব্যথা কমাতে কাজ করে।

 

কলা:
অনন্য ফল কলা। কলার মধ্যে পটাসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম ভরপুর রয়েছে। এই উপাদানগুলো মাইগ্রেনের ব্যথা কমাতে কাজে দেয়। কলা রক্তনালীকে শিথিল করে। ভালো ফলাফলের জন্য প্রতিদিন কলা খান।

ঝাল খাবার:
ঝাল খাবার বিশেষত মরিচের চা আপনাকে মাইগ্রেনের ব্যথায় অনেকটাই আরাম দেবে, ব্যথার তীব্রতা কমাবে।

পুদিনাপাতার চা:
প্রতিদিন পুদিনা পাতা মিশ্রিত চা খেলে মাইগ্রেনের ব্যথায় আক্রান্তের সম্ভাবনা কমবে অনেকটাই।

গোলমরিচ:
খাবার নিয়মিত গোলমরিচ মেশালে রসনায় তৃপ্তি তো আনবে, মাইগ্রেনের ব্যথায় অনেকটাই রেহাই পাবেন আপনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.